ঢাকা ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘরে বসে ফিট থাকার সহজ উপায়

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:২১:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ মে ২০২৪ ৫ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আজকের ব্যস্ত জীবনযাত্রায় আমরা প্রায়ই ফিট থাকার জন্য পর্যাপ্ত সময় বের করতে পারি না। জিমে যাওয়া বা বাইরের ব্যায়ামাগারে সময় ব্যয় করা অনেকের জন্যই কষ্টসাধ্য। তবে, ঘরে বসেই ফিট থাকার অনেক সহজ উপায় রয়েছে। নিয়মিত কিছু অভ্যাস এবং সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি সহজেই সুস্থ এবং ফিট থাকতে পারেন। আসুন জেনে নিই, কীভাবে ঘরে বসেই ফিট থাকা যায়।

১. শারীরিক ব্যায়াম

শারীরিক ব্যায়াম সুস্থ থাকার অন্যতম প্রধান উপায়। ঘরে বসে আপনি নীচের কিছু ব্যায়াম করতে পারেন যা আপনার শরীরকে ফিট রাখতে সাহায্য করবে:

ক. পুশ-আপস: পুশ-আপস করার জন্য কোনো যন্ত্রপাতির প্রয়োজন নেই। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সংখ্যক পুশ-আপস করলে শরীরের উপরের অংশ শক্তিশালী হয়।

খ. স্কোয়াটস: স্কোয়াটস করার জন্য দাঁড়িয়ে, হাত সামনে রেখে বসার মত করে উঠা-বসা করুন। এটি আপনার পা এবং নিতম্বের পেশি শক্তিশালী করবে।

গ. প্ল্যাঙ্ক: প্ল্যাঙ্ক ব্যায়ামটি আপনার কোমর ও পেটের পেশি শক্তিশালী করতে সাহায্য করবে। প্ল্যাঙ্ক করতে হলে আপনার শরীরকে ফ্লোরের সাথে সমান্তরাল করে রাখুন এবং যতক্ষণ সম্ভব এই অবস্থায় থাকুন।

ঘ. যোগব্যায়াম: যোগব্যায়াম মন ও শরীরকে সুস্থ রাখে। বিভিন্ন আসন ও প্রাণায়ামের মাধ্যমে যোগব্যায়াম করে আপনি শরীরের নমনীয়তা বাড়াতে এবং মানসিক চাপ কমাতে পারেন।

২. সঠিক খাদ্যাভ্যাস

খাদ্যাভ্যাস আপনার ফিটনেসের উপর অনেক বড় প্রভাব ফেলে। ঘরে বসে ফিট থাকার জন্য আপনাকে সঠিক খাদ্যাভ্যাস মেনে চলতে হবে।

ক. পুষ্টিকর খাদ্য: ফল, সবজি, মাছ, মুরগি, বাদাম এবং শস্যজাতীয় খাদ্য গ্রহণ করুন। এই সব খাবারে প্রয়োজনীয় ভিটামিন, মিনারেল এবং ফাইবার পাওয়া যায় যা শরীরের সুস্থতার জন্য অপরিহার্য।

খ. পর্যাপ্ত পানি পান: শরীরকে হাইড্রেটেড রাখার জন্য প্রচুর পানি পান করুন। প্রতিদিন অন্তত ৮-১০ গ্লাস পানি পান করুন।

গ. সুষম খাবার: সুষম খাবার গ্রহণ করুন যেখানে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং চর্বির সমন্বয় থাকবে। খাবার সময় একসাথে অনেকটা না খেয়ে ছোট ছোট অংশে খান।

ঘ. ফাস্ট ফুড এড়ানো: ফাস্ট ফুড এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার পরিহার করুন। এগুলো শরীরের ওজন বাড়াতে এবং বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে।

৩. মানসিক সুস্থতা

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মানসিক সুস্থতাও জরুরি। মানসিক সুস্থতা নিশ্চিত করার জন্য কিছু ধাপ অনুসরণ করতে পারেন।

ক. ধ্যান: ধ্যান মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন কিছু সময় নির্দিষ্ট করে ধ্যান করলে মন শান্ত থাকে এবং একাগ্রতা বাড়ে।

খ. পর্যাপ্ত ঘুম: পর্যাপ্ত ঘুম শরীর ও মনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন অন্তত ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমান।

গ. প্রিয় কাজ করুন: অবসর সময়ে প্রিয় কিছু কাজ করুন যেমন বই পড়া, গান শোনা বা ছবি আঁকা। এসব কাজ মনকে প্রশান্তি দেয়।

ঘ. পরিবার ও বন্ধুদের সাথে সময় কাটান: পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলুন এবং সময় কাটান। এটি মানসিকভাবে আপনাকে সুস্থ রাখবে।

৪. নিয়মিত রুটিন মেনে চলা

নিয়মিত রুটিন মেনে চললে আপনি ফিট থাকতে পারেন। প্রতিদিন একই সময়ে ঘুম থেকে ওঠা, খাওয়া, ব্যায়াম করা এবং কাজ করা অভ্যাস করুন।

৫. ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া

আপনার শরীরের যেকোনো সমস্যা হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করুন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা গ্রহণ করুন।

ঘরে বসে ফিট থাকা খুব সহজ এবং সম্ভব। শুধু সঠিক পরিকল্পনা এবং নিয়মিত অভ্যাসের মাধ্যমে আপনি সুস্থ ও ফিট থাকতে পারবেন। মনে রাখবেন, সুস্থ দেহেই সুস্থ মন বাস করে। তাই নিজের যত্ন নিন এবং ফিট থাকুন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ঘরে বসে ফিট থাকার সহজ উপায়

আপডেট সময় : ০৬:২১:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ মে ২০২৪

আজকের ব্যস্ত জীবনযাত্রায় আমরা প্রায়ই ফিট থাকার জন্য পর্যাপ্ত সময় বের করতে পারি না। জিমে যাওয়া বা বাইরের ব্যায়ামাগারে সময় ব্যয় করা অনেকের জন্যই কষ্টসাধ্য। তবে, ঘরে বসেই ফিট থাকার অনেক সহজ উপায় রয়েছে। নিয়মিত কিছু অভ্যাস এবং সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি সহজেই সুস্থ এবং ফিট থাকতে পারেন। আসুন জেনে নিই, কীভাবে ঘরে বসেই ফিট থাকা যায়।

১. শারীরিক ব্যায়াম

শারীরিক ব্যায়াম সুস্থ থাকার অন্যতম প্রধান উপায়। ঘরে বসে আপনি নীচের কিছু ব্যায়াম করতে পারেন যা আপনার শরীরকে ফিট রাখতে সাহায্য করবে:

ক. পুশ-আপস: পুশ-আপস করার জন্য কোনো যন্ত্রপাতির প্রয়োজন নেই। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সংখ্যক পুশ-আপস করলে শরীরের উপরের অংশ শক্তিশালী হয়।

খ. স্কোয়াটস: স্কোয়াটস করার জন্য দাঁড়িয়ে, হাত সামনে রেখে বসার মত করে উঠা-বসা করুন। এটি আপনার পা এবং নিতম্বের পেশি শক্তিশালী করবে।

গ. প্ল্যাঙ্ক: প্ল্যাঙ্ক ব্যায়ামটি আপনার কোমর ও পেটের পেশি শক্তিশালী করতে সাহায্য করবে। প্ল্যাঙ্ক করতে হলে আপনার শরীরকে ফ্লোরের সাথে সমান্তরাল করে রাখুন এবং যতক্ষণ সম্ভব এই অবস্থায় থাকুন।

ঘ. যোগব্যায়াম: যোগব্যায়াম মন ও শরীরকে সুস্থ রাখে। বিভিন্ন আসন ও প্রাণায়ামের মাধ্যমে যোগব্যায়াম করে আপনি শরীরের নমনীয়তা বাড়াতে এবং মানসিক চাপ কমাতে পারেন।

২. সঠিক খাদ্যাভ্যাস

খাদ্যাভ্যাস আপনার ফিটনেসের উপর অনেক বড় প্রভাব ফেলে। ঘরে বসে ফিট থাকার জন্য আপনাকে সঠিক খাদ্যাভ্যাস মেনে চলতে হবে।

ক. পুষ্টিকর খাদ্য: ফল, সবজি, মাছ, মুরগি, বাদাম এবং শস্যজাতীয় খাদ্য গ্রহণ করুন। এই সব খাবারে প্রয়োজনীয় ভিটামিন, মিনারেল এবং ফাইবার পাওয়া যায় যা শরীরের সুস্থতার জন্য অপরিহার্য।

খ. পর্যাপ্ত পানি পান: শরীরকে হাইড্রেটেড রাখার জন্য প্রচুর পানি পান করুন। প্রতিদিন অন্তত ৮-১০ গ্লাস পানি পান করুন।

গ. সুষম খাবার: সুষম খাবার গ্রহণ করুন যেখানে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং চর্বির সমন্বয় থাকবে। খাবার সময় একসাথে অনেকটা না খেয়ে ছোট ছোট অংশে খান।

ঘ. ফাস্ট ফুড এড়ানো: ফাস্ট ফুড এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার পরিহার করুন। এগুলো শরীরের ওজন বাড়াতে এবং বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে।

৩. মানসিক সুস্থতা

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মানসিক সুস্থতাও জরুরি। মানসিক সুস্থতা নিশ্চিত করার জন্য কিছু ধাপ অনুসরণ করতে পারেন।

ক. ধ্যান: ধ্যান মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন কিছু সময় নির্দিষ্ট করে ধ্যান করলে মন শান্ত থাকে এবং একাগ্রতা বাড়ে।

খ. পর্যাপ্ত ঘুম: পর্যাপ্ত ঘুম শরীর ও মনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন অন্তত ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমান।

গ. প্রিয় কাজ করুন: অবসর সময়ে প্রিয় কিছু কাজ করুন যেমন বই পড়া, গান শোনা বা ছবি আঁকা। এসব কাজ মনকে প্রশান্তি দেয়।

ঘ. পরিবার ও বন্ধুদের সাথে সময় কাটান: পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলুন এবং সময় কাটান। এটি মানসিকভাবে আপনাকে সুস্থ রাখবে।

৪. নিয়মিত রুটিন মেনে চলা

নিয়মিত রুটিন মেনে চললে আপনি ফিট থাকতে পারেন। প্রতিদিন একই সময়ে ঘুম থেকে ওঠা, খাওয়া, ব্যায়াম করা এবং কাজ করা অভ্যাস করুন।

৫. ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া

আপনার শরীরের যেকোনো সমস্যা হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করুন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা গ্রহণ করুন।

ঘরে বসে ফিট থাকা খুব সহজ এবং সম্ভব। শুধু সঠিক পরিকল্পনা এবং নিয়মিত অভ্যাসের মাধ্যমে আপনি সুস্থ ও ফিট থাকতে পারবেন। মনে রাখবেন, সুস্থ দেহেই সুস্থ মন বাস করে। তাই নিজের যত্ন নিন এবং ফিট থাকুন।